মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই, ২০১৮

জকিগঞ্জে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ইমাম কারাগারে

জকিগঞ্জের হাজারীচক পশ্চিম জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা আলী হোসেন বিরুদ্ধে ৩য় শ্রেণীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। সোমবার (১৬ জুলাই) আলী হোসেন এ ঘটনার দায় স্বীকার করে জকিগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবিন্দ দিয়েছেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। মাওলানা আলী হোসেন জকিগঞ্জ উপজেলার বারঠাকুরী ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের বাসিন্দা।আলী হোসেনের জবানবন্দির বরাত দিয়ে সিলেটের জকিগঞ্জ থানার ওসি হাবিবুর রহমান হওলাদার বলেন, ধর্ষণের শিকারও ওই স্কুলছাত্রীকে রবিবার (১৫ জুলাই) বিদ্যালয় ছুটির পর বাড়ি ফেরার পথে হাজারীচক পশ্চিম জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা আলী হোসেন জোর করে তার কক্ষে নিয়ে যান। তাকে কক্ষে নেওয়ার পর পানির সঙ্গে ঘুমের ঔষধ মিশিয়ে ওই শিশুকে খাওয়ানোর পর ধর্ষণ করেন সে।


তিনি আরও জানান, এরপর শিশুটি অচেতন হয়ে পড়লে তাকে তার খাটের নীচে লুকিয়ে রাখে। পরে শিশুটিকে রাতে মসজিদের বারান্দা রেখে আসে আলী হোসেন। শিশুটির বাবা মসজিদের মাইকে শিশুটির নিখোঁজের বিষয়ে ঘোষণা করতে গেলে তারা বারান্দায় শিশুটিকে দেখেতে পান। এরপর তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এসময় উত্তেজিত জনতা মসজিদের ইমাম আলী হোসেনকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশ সোপর্দ করে। পরে এঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করেন ওই শিশুর বাবা।