বৃহস্পতিবার, ১২ জুলাই, ২০১৮

মার্গেট সমুদ্র সৈকত পরিণত হয়েছিল একখণ্ড গোলাপগঞ্জ

ব্রিটেনে বসবাসরত গোলাপগঞ্জবাসীদেরকে নিয়ে প্রথমবারের অনুষ্ঠিত হল সমুদ্র সৈকত ভ্রমণ ২০১৮। গত ৮ জুলাই রবিবার সকাল ৮ ঘটিকা থেকে পূর্ব লন্ডনের আলতাব আলী পার্কে ট্রাস্টের সদস্যবৃন্দরা তাদের পরিবার নিয়ে একে একে জড়ো হতে থাকেন। সকলের চোখে মুখে ছিল আনন্দ-উচ্ছ্বাস। সমুদ্র সৈকতে ৬টি কোচে প্রায় আড়াই শতাধিক লোকের বহর নিয়ে ভ্রমণে গোলাপগঞ্জবাসীদের বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা ছিল লক্ষণীয়।সমুদ্র সৈকত ভ্রমণে বাংলাদেশ থেকে এসে যোগ দিয়েছিলেন বাংলাদেশ রাইফেলস এর সাবেক মহাপরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল (অব) মোহাম্মদ আজিজুর রহমান বীর-উত্তম ও তার সহধর্মিণী।

এতে গোলাপগঞ্জ উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার ট্রাস্টের সদস্যবৃন্দ তাদের পরিবার নিয়ে উপস্থিত ছিলেন। বাঘা ইউনিয়ন থেকে মিছবা মাছুম, দুলাল আহমদ, কামরুল ইসলাম, আজিজুর রহমান খান, ফাহিম ফয়েজ, মনির উদ্দিন প্রমুখ।
গোলাপগঞ্জ ইউনিয়ন থেকে মেজর জেনারেল (অব) আজিজুর রহমান বীর উত্তম, ড. রেণু লুৎফা, লেখক ফারুক আহমদ, গোলাপগঞ্জ হেলপিং হেন্ডস ইউকের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সায়াদ আহমদ সাদ, ইয়াহিয়া খান, হোসাইন রশিদ প্রমুখ।
ফুলবাড়ি ইউনিয়ন থেকে আফজাল হোসেন, মাহমুদর রহমান ও ইসমাইল হোসেন আশফাক হোসেন প্রমুখ।
লক্ষিপাশা ইউনিয়ন থেকে মুকিতুর রহমান, মিকাইল ইসলাম প্রমুখ।
বুধবারীবাজার ইউনিয়ন থেকে মুক্তিযোদ্ধা আমান উদ্দিন, মোহাম্মদ শামছুল হক, জেনিফার সারোয়ার লাস্কমী, বিলাল আহমদ মিলন, বদরুল আলম বাবুল, সালেহ আহমদ, ফয়জুর রহমান সেলিম, শামসুদ্দিন খান, রুহেল আহমদ, সাহেদ আহমদ, জয়নাল আহমদ খান, জিয়া উদ্দিন, আব্দুল শাহেদ প্রমুখ।
ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়ন থেকে উপস্থিত ছিলেন রুহুল আমিন রুহেল, দেওয়ান নজরুল ইসলাম, আব্দুল কাদির, হেলাল আহমদ, আনোয়ার শাহজাহান, রাসেল আহমদ, মুকিতুর রহমান মুকিত, সায়াদাত হোসেন সায়েম, রেদওয়ান হোসেন রেজা, কিশওয়ার এনাম লিটন, মোহাম্মদ ময়নুল ইসলাম, ইমরুল হোসেন। ভাদেশ্বর ইউনিয়ন থেকে উপস্থিত ছিলেন সৈয়দ মুজিবুল হক আজু, এনামুর রহমান এনু। পশ্চিম আমুড়া ইউনিয়ন থেকে উপস্থিত ছিলেন মাসুদ আহমদ জুয়েল, জহির উদ্দিন, শহির উদ্দিন, শিহাব উদ্দিন, কামাল উদ্দিন। উত্তর বাদেপাশা ইউনিয়ন থেকে উপস্থিত ছিলেন মোহাম্মদ লোকমান উদ্দিন, মোহাম্মদ আব্দুল বাছিত, আজিজুস সামাদ এবং শরিফগঞ্জ ইউনিয়ন থেকে উপস্থিত ছিলেন আব্দুন নুর প্রমুখ।
সকাল ১০ টায় বাসে করে যাত্রা শুরু হয়। পথে সকালের নাস্তার জন্য সার্ভিস স্টেশনে যাত্রা বিরতি করে মূল গন্তব্যে পৌঁছে শুরু হয় আনন্দ উল্লাস। দেশীয় খেলাধুলার পাশাপাশি গান ও কৌতূক ছিল। এতে পুরুষদের জন্য ছিল ফুটবল, হাঁড়িভাঙা, মোরগ দৌড়, মার্বেল খেলা। মেয়েদের জন্য ছিল হাঁড়িভাঙা, চামচের উপর ডিম নিয়ে মহিলাদের দৌড় ইত্যাদি। এই সফরে পুরুষের পাশাপশি মহিলা ও শিশু-কিশোরদের অংশগ্রহণ ছিল লক্ষ্যনীয়। খেলা শেষে বিজয়ীদের মাঝে পূরস্কার বিতরণ করা হয়। এ সময় বক্তারা বলেন, প্রবাসের মাটিতে নিজেদের ঐতিহ্য ভবিষ্যত প্রজন্মের মধ্যে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য এ ধরনের অনুষ্ঠানের বিকল্প নেই। তারা বলেন, সকলের মধ্যে ভ্রাতৃত্ব বন্ধন সৃষ্টির জন্য আমাদের সামাজিক অনুষ্ঠানাদী বেশী বেশী করতে হবে। পরে সমুদ্র ভ্রমণের সমাপ্তি ঘোষনার মধ্যদিয়ে লন্ডনের উদ্দেশ্যে সকলে যাত্রা শুরু করে।
পুরো অনুষ্ঠান লাইভ সম্প্রচার করেন রিয়েল সিলেটের এডমিন আলী রেজা।
একটি সফল আয়োজনের জন্য প্রবাসী গোলাপগঞ্জবাসীদের কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন সংগঠনের আহবায়ক ড. রেণু লুৎফা ও সদস্য সচিব আনোয়ার শাহজাহান।