সোমবার, ২৫ জুন, ২০১৮

মুসলিম বিশ্বের সেনাপতি এরদোগান আবারো বিজয়ী

বিশ্ব রাজনীতির প্রেক্ষাপটে অসহায় ও মজলুম মানুষের স্বার্থে এরদোগানের বিজয়টির বড় প্রয়োজন ছিল।  এরদোগানের বিজয়ে বিশ্ব রাজনীতিতে আধিপত্যবাদী মোড়লদের কিছুটা হলেও লাগাম ধরার পথ প্রসস্থ হলো। তুরস্কের জনগণ এরদোগানকে শুধু ভোট দিয়েই সমর্থন দেয় নাই, সেনা ক্যু ঠেকাতে ট্যাঙ্কের সামনে কিভাবে জীবন বাজি রেখেছে তা গোটা বিশ্ব দেখেছে। তাই সঠিক পরিকল্পনা ও পলিসি নিয়ে দেশের জনগণকে আশার আলো দেখাতে পারলে কোনো শক্তিই বিজয় ঠেকাতে পারে না, তা আবারো প্রমাণিত হলো। একটা জাতিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে এবং স্রোতের প্রতিকূলে হাঁটার জন্য প্রয়োজন দৃঢ় নেতৃত্ব এবং সততা ও যোগ্যতার সমন্বয়ে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কর্মীবাহিনী। কারো করুণা ও দয়ার উপর নির্ভর করে এবং চাটুকার ও সুযোগ সন্ধানীদের দিয়ে আর যাই হোক জাতি গঠনের রাজনীতি হয় না।


নির্বাচনের ফলাফলের চিত্র

আদর্শিক কারণে যারা এরদোগানকে অপছন্দ করে তারাও এরদোগানের নেতৃত্বে ইউরোপের মতো তুরস্কের উন্নয়ন পলিসিকে পছন্দ করে। শিক্ষা, চিকিৎসাসহ আর্থসামাজিক উন্নয়নের মাধ্যমে এরদোগান জনগণের হৃদয়ে যে অবস্থান করে নিয়েছেন তা এগিয়ে নিতে তুরস্কের জনগণ এরদোগানকে আবারো বেছে নিয়েছেন । এরদোগানের বিজয় ঠেকাতে বিরোধীদলের বিভিন্ন পরিকল্পনার পাশাপাশি বিশ্ব মোড়লদের যার পর নাই চেষ্টা এরদোগানের ক্যারিশমেটিক নেতৃত্বের কাছে পরাজিত হয়েছে ।  এরদোগানের বিজয়ে তার সমৃদ্বি কামনা করি এবং তুরস্কের জনগণকে জানাই প্রানঢালা অভিনন্দন।