বুধবার, ৯ মে, ২০১৮

শসা,আমড়া, কাঁচা আমে মেশানো হচ্ছে কাপড়ের রঙ

খাদ্যে নানারকম রঙ ও ভেজালের কথা শোনা যায় প্রায়ই। তৃণমূলে জনপ্রিয় খাবার শসা, আমড়া, আমে এখন মেশোনো হচ্ছে ক্ষতিকর রঙ। গরমে এই খাবারের চাহিদা থাকায় বেশী লাভের আশায় রঙ মিশিয়ে বিক্রি করছে হকাররা। এই রঙ মেশানো খাবার স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকি বলছেন চিকিৎসকরা। ছুটছে দূরপাল্লার বাস। যানবাহনগুলো ঘিরে শসা, কাঁচা আম, আমড়া বিক্রেতা হকারদেরও ছুটাছুটি দিনভর। তীব্র গরমে যাত্রীদের কাছে পানিজাতীয় ও টক খাবারের চাহিদাও যায় বেড়ে। 
সকালে একসঙ্গে অনেক শসা কেটে নিয়ে আসা হয় বিক্রির জন্য। যদিও কাটার কিছুক্ষণ পর বাসি হয়ে যায় এই খাবার। কিন্তু হকারের কাছে থাকা পলিথিনের ভেতর টুকরো টুকরো শসাগুলোও বেশ টাটকা, কচি মনে হয়। অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে এসব শসা টাটকা রাখতে ব্যবহার করা হয় রং এর মত এক ধরনের কেমিক্যাল। 

হকারের দাবি, ব্যবহৃত রঙ ফুড কালার। কমলা রঙয়ের পাউডার, পানিতে দিতেই হয়ে যায় গাঢ় সবুজ। শসা কেটে এই পানিতে কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রেখে তারপর প্যাকেট করা হয়। মোহনীয় রঙয়ে শসাগুলো হয়ে উঠে কচি সবুজ ৫/৬ ঘন্টা এমনই থাকে এই শসা।


স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর রঙ মেশানো এই শসা, আমড়া, আম দিনের পর দিন খেয়ে যাচ্ছেন অনেকে।

এগুলো খাওয়ার পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া হিসেবে হতে পারে বমি ও ডায়রিয়া। পাশাপাশি কিডনি বিকল হওয়াসহ এমন খাবারে শরীরে বাসা বাধতে পারে ক্যান্সার বলছেন চিকিৎসকরা।

জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি এসব ভেজাল খাবার বিক্রি বন্ধে আইনশৃংখলা বাহিনীর নজরদারি বাড়ানোর পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।