সোমবার, ২ এপ্রিল, ২০১৮

বাঘা মাদ্রাসা বাঘার প্রাণ।মাদ্রাসা সড়কের উন্নয়ন একান্ত প্রয়োজন।

এম এ সামাদ (গোলাপগঞ্জ):বাঘা গুলাপনগরে অবস্থিত ঐতিহাসিক বাঘা মাদ্রাসার সড়কের বেহাল অবস্থা।এই সড়কের উন্নয়ন একান্ত জরুরি।উক্ত মাদ্রাসা সংগলগ্ন কবরস্তানে শাইতো রয়েছেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত আলেম হজরত শায়খে বাঘা বশির আহমদ(রঃ)।

প্রখ্যাত এই আলেমের মাজার জিয়ারত করতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ধর্মপ্রাণ মুসলমান গণ অত্র এলাকায় দূর দূরান্ত থেকে গাড়ি নিয়ে আসেন।রাস্তার করুন অবস্থার কারণে অনেকে দ্বিতীয় বার আসার পরিকল্পনা হয়তোবা বাদ দিয়েছেন।



দীর্ঘদিন দিন যাবৎ এই রাস্তার সংস্কারে কোন উদ্বেগ নেয়া হয়নাই।স্থানীয়রা ও দর্শনার্থীরা প্রতিদিন এই রাস্তার কারণে সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন।বিশেষ করে রুগী ও বয়োবৃদ্ধরা এই রাস্তা পারাপারে অসহনীয় ভুগান্তির কবলে পড়তেছেন। এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে এলাকার গণ মানুষের ভোগান্তি দূরী করণে এই রাস্তার সংস্কার একান্ত প্রয়োজন।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকার সুশীল সমাজের বাঘা মাদ্রাসা রাস্তার মেরামত করণে যথাযত উদ্বেগ নেয়া একান্ত জরুরি।
------------------------------------------------------------------
শায়খে বাঘা (রহঃ) জীবনী-শায়েখ মাহবুব আহমদ"

হযরত শায়খে বাঘা (রহঃ)রমযান শরীফে সিলেটের নয়াসড়ক জামে মসজিদে মাসব্যাপী এতেক্বাফ করতেন। একদিন ঘটনাক্রমে ইফতারের সময় মসজিদে কোন ধরণের ইফতার আসেনি। রুজাদার মুসল্লিরা খুব পেরেশানিতে পড়ে গেলেন, একজন শায়খে বাঘা (রহঃ) বললেন হুজুর আজকে ইফতার কেউ দেয়নাই, এখন কি করা যায়!!
তখন শায়খে বাঘা (রহঃ) বলেন একজন যাও পাশের দুকান থেকে একটি রুটি নিয়ে আস, হুজুরের কথা অনুযায়ী দুই আনা দরের একটি রুটি নিয়ে আসা হল। এবার তিনি রুটি খানা একটি থালার উপর রেখে, একখানা চাদর দ্বারা ঢেকে দিলেন, এবং উপস্থিত রোযাদারগনকে ইফতার করার জন্য নির্দেশ দিলেন।

হাফিজ আব্দুল মতিন সাহেব বলেন, সেদিন আমরা পঁয়তাল্লিশ জন এই রুটি দিয়ে পেট ভরে ইফতার করার পরও আরো অন্তত দুজনের ইফতার পরিমাণ রুটি অতিরিক্ত রয়ে গেল।(সুবাহান আল্লাহ)
ক্ষুদ্রাকারের যে রুটি খেয়ে একজনেরও পেট ভরার কথা নয় পঁয়তাল্লিশ জনে খাওয়ার পরও রুটি থেকে অতিরিক্ত থাকাটা আল্লাহর প্রদত্ত বরকত ছাড়া আর কিছু নয়।আজ শায়খে বাঘা (রহঃ) আমাদের মাঝে নেই'কিন্তু তার অলৌকিক কারামত আজও একটি বিদ্যমান ইতিহাস।

ইসলামের খেদমত, ইলমে দ্বীনের সংরক্ষণ ও চর্চা এবং মুসলিম জনতার আত্মিক পরিশুদ্ধির জন্য শায়খে বাঘা রহঃ নাম শ্রদ্ধার সঙ্গে উচ্চারিত হবে। তার অলৌকিক কারামত আমাদের মাঝে একটি বিদ্যমান ইতিহাস হয়ে থাকবে।