শুক্রবার, ৯ মার্চ, ২০১৮

মোস্তাফিজের সঙ্গে ডিসির মেয়ের বিয়ে

মুস্তাফিজ এর সঙ্গে ডিসির মেয়ের ছবি নিয়ে মিথ্যাচার বিশেষ প্রতিনিধি : বিশ্ব ক্রিকেটের সেরা উদিয়মান তারকা মুস্তাফিজ এর সঙ্গে সাতক্ষীরা জেলার ডিসির মেয়ের ছবি তোলা নিয়ে ভারতীয় ‘এবেলা’mustafij-dc doghter-www.jatirkhantha.com.bd নামে একটি সংবাদ মাধ্যমে মুখরোচক সংবাদ পরিবেশনে তোলপড় চলছে।

বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা চলছে। সংবাদ মাধ্যমটির দায়িত্বজ্ঞানহীনতা ও অনুমান নির্ভর রিপোটিং এর তীব্র সমালোচনা করেছেন বাংলাদেশের মুস্তাফিজ ভক্ত লাখো লাখো ক্রিকেট সমর্থকরা। জাতিরকন্ঠে ফোন করে মুস্তাফিজ ভক্তরা জানিয়েছেন ভারতীয় গনমাধ্যমের এহেন বানোয়াট খবরের জন্যে তাদের দুঃখ প্রকাশ করতে হবে।
abalaমুস্তাফিজ ভক্তরা বলেছেন, ভারতীয়রা ক্রিকেটার মানেই বিরাট কোহলী বা গেইলের মত নারী সঙ্গ ভাবা শুরু করে। যা হিনমন্যতার নামান্তর। মুস্তাফিজের ক্ষেত্রে এটা তাদের ভাবা ঠিক হয়নি। কারণ মুস্তাফিক একজন সহজ সরল তরুণ।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সম্প্রতি ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) মাতিয়ে আসা বাংলাদেশের তরুণ বাঁ-হাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমানকে নিয়ে দায়িত্বজ্ঞানহীন খবর পরিবেশন করলো ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ‘এবেলা’।
‘মুস্তাফিজের সঙ্গে কে এই মেয়েটি’- এই শিরোনামে শনিবার একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে সংবাদমাধ্যমটি। প্রতিবেদনে মুস্তাফিজের সঙ্গে ঐ মেয়েটির রোমান্টিক সম্পর্ক খোঁজার চেষ্টা করা হয়েছে। অনুমান নির্ভর ঐ রিপোর্টে তাকে মুস্তাফিজের গ্রামের মেয়ে বলেও উল্লেখ করা হয়।
এবেলার সেই প্রতিবেদনে লেখা হয়, ‘মুস্তাফিজুরকে নিয়ে জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছে একটি ছবি দিনের আলো দেখার পরে। ছবিতে দেখা গিয়েছে মুস্তাফিজুরের পাশে রয়েছে একটি মিষ্টি মেয়ে। আর সেই ছবি প্রকাশিত হওয়ার পরেই মুস্তাফিজের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে শুরু হয়ে গিয়েছে চর্চা। এই মেয়েই কি মুস্তাফিজুরের প্রেমিকা? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজছে বাংলাদেশ। ’
মেয়েটিকে মুস্তাফিজের গ্রামের মেয়ে বলে উল্লেখ করে প্রতিবেদনটিতে আরও লেখা হয়, ‘সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদকে চ্যাম্পিয়ন করে বাংলাদেশে ফেরার পরে অনেকেই মুস্তাফিজুরের সঙ্গে দেখা করতে যান সাতক্ষীরায়। সেই সময় একটি মেয়ে মুস্তাফিজুরের সঙ্গে ছবি তোলেন। আর এই ছবিই জন্ম দিয়েছে যাবতীয় জল্পনার। মুস্তাফিজুরের প্রেম নিয়ে চলছে চর্চা। জানা গিয়েছে মেয়েটি মুস্তাফিজুরের গ্রামেরই। ’
কিন্তু ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত এই প্রতিবেদনের ঘটনা সত্য নয়। প্রকৃত ঘটনা হলো; মেয়েটি মুস্তাফিজের গ্রামের নয়, তিনি সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের কন্যা। আইপিএল থেকে ফেরার পর বৃহস্পতিবার বিকালে জেলা প্রশাসক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি আবুল কাশেম মোঃ মহিউদ্দিনের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল কালীগঞ্জের তেতুলিয়ায় যান মুস্তাফিজকে সংবর্ধনা দেওয়ার জন্য।
জেলা ক্রীড়া সংস্থার পক্ষ থেকে এক লক্ষ টাকার চেকও দেওয়া হয় আইপিএল-জয়ী মুস্তাফিজকে। সেই সময় জেলা প্রশাসক এবং অন্যান্যরা মুস্তাফিজের সঙ্গে ছবি তুলেন। এসময় অনেকেই মুস্তাফিজের সঙ্গে এককভাবেও ছবিও তোলেন। এমনকি জেলা প্রশাসকের মেয়েও। মুস্তাফিজের সঙ্গে জেলা প্রশাসকের মেয়ের সেই একক ছবি নিয়েই যত কানাঘুষা।