সোমবার, ২৯ জানুয়ারী, ২০১৮

মেলায় প্রাণের ভুয়া বিজ্ঞাপন!

মিথ্যা ও ভুয়া বিজ্ঞাপন দিয়ে পণ্য বিক্রি করায় দেশের অন্যতম কনজিউমার প্রতিষ্ঠান ‘প্রাণ’ কে ৩ লাখ ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ক্রেতাদের অভিযোগের ভিত্তিতে জরিমানা করেছে মেলায় অবস্থিত (অস্থায়ী) জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কার্যালয়।


জাতীয় ভোক্তা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল জব্বার মন্ডল বাংলা ইনসাইডারকে বলেন, রোববার (২৮ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৯ টার দিকে জিয়নুর রহমান, মাহবুব রায়হান, রনভীর সাহা ও রাসেল রেজা নামে চারজন ক্রেতার চারটি অভিযোগের ভিত্তিতে এই জরিমানা করা করা।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, চারটি অভিযোগের মধ্যে তিনটি অভিযোগ করা হয়েছে মেলায় প্রাণ গ্রুপের অলটাইম প্যাভিলিয়ে বিরুদ্ধে। প্রাণ আরএফএল এর অঙ্গ প্রতিষ্ঠান অলটাইম কোকি ব্রান্ডের যার মার্কেট প্রাইজ ২০০ টাকা যা মেলা উপলক্ষে ৫০ টাকা ছাড়ে ১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

কিন্তু অলটাইম কোকি ব্রান্ডের বিস্কুট, কেকসহ যে খাদ্যদ্রব্য রয়েছে তার মূল্য যোগ করে দেখা গেছে মাত্র ১২৫ টাকা। আর ২৫ টাকার পণ্য কম দেওয়া হচ্ছে। আর এই অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটিকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

এমন আরও দুটি অভিযোগের ভিত্তিতে অলটাইমকে এক লাখ করে দুই লাখ টাকা জরিমানা করে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

চতুর্থ অভিযোগে বলা হয়, আরএফএল প্লাস্টিকের ৫৬ নম্বর প্যাভিলিয়নে কিছু পণ্যের ছবিসহ ৩০ শতাংশ ছাড় রয়েছে। কিন্তু বাস্তবে পাঁচ শতাংশ ছাড় দেওয়ার অভিযোগ করেন এক পুলিশ সদস্য। এই অভিযোগের ভিত্তিতে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

তিনি আরও জানান, জরিমানার ২৫ শতাংশ অর্থ অভিযোগকারীদের পুরস্কার হিসেবে দেওয়া হয়েছে।

ক্রেতাদের অভিযোগের ভিত্তিতে প্রাণ আরএফএল গ্রুপকে জরিমানা করেন অধিদফতরের ঢাকা বিভাগীয় কাযার্লয়ের উপ-পরিচালক (উপসচিব) মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার, সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল জব্বার মন্ডল ও আফরোজা ফাতেমা ।

ঢাকা বিভাগীয় কাযার্লয়ের উপ-পরিচালক (উপসচিব) মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার বলেন, মেলায় শেষের দিকে মেলায় ক্রেতা-দর্শণার্থীদের ভিড় বেড়ে যায়। আর এই সুযোগে বিক্রেতারা প্রতারণা করেন।


মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার আরও জানান, ভোক্তাদের স্বার্থে সার্বক্ষণিক মনিটরিং ব্যবস্থা রয়েছে। প্রতিদিন দু’বার করে অভিযান চলছে। যারা নির্দেশনা অমান্য করে অনৈতিকভাবে ব্যবসা করছে তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এছাড়া কোনো বিক্রেতা প্রতারিত হয়ে আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ করলে তাৎক্ষণিক নিষ্পত্তি করা হচ্ছে। প্রমাণ সাপেক্ষে প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে জরিমানার ২৫ শতাংশ অর্থ অভিযোগকারীকে পুরস্কার হিসেবেও দেওয়া হচ্ছে।

এদিকে, মেলায় এমন অভিযোগ ও তার ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে জরিমানার বিষয়টি স্বাগত জানিয়েছেন ক্রেতারা।