শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর, ২০১৭

অনলাইনে নাগরিক সেবা চালু করতে যাচ্ছে সিসিক!

স্টাফ রিপোর্ট:২০১৮ সালের ১লা জানুয়ারি থেকে অনলাইন সেবা চালু করতে যাচ্ছে সিলেট সিটি করপোরেশন। এ উপলক্ষে মঙ্গলবার রাতে সিসিক কার্যালয়ে ‘রিকারসন টেকনোলজি লিমিটেড’ নামের একটি আইটি কোম্পানির সাথে চুক্তি স্বাক্ষর সম্পন্ন করেছে সিসিক। সিটি করপোরেশনের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। ‘রিকারসন টেকনোলজি লিমিটেড’ এর পক্ষে স্বাক্ষর করেন কোম্পানির চেয়ারম্যান আকিকুর রহমান চৌধুরী। এসময় সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর শান্তনু দত্ব সন্তু, সৈয়দ মিছবাহ উদ্দিন আহমদ, দিনার খান হাসু, সিসিকের সচিব বদরুল হক, প্রধান প্রকৌশলী নুর আজিজুর রহমান, প্রকৌশলী রুহুল আমিন, হিসাবরক্ষন কর্মকর্তা আ ন ম মুনছেফ, প্রশাসনিক কর্মকর্তা হানিফুর রহমান, সহকারী প্রকৌশলী জয়দেব বিশ্বাস উপস্থিত ছিলেন।



অনুষ্ঠানে ‘রিকারসন টেকনোলজি লিমিটেড’ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আরিফ হোসাইন, চীফ মার্কেটিং অফিসার মোহাম্মদ সাহেদ উল্লাহ ও চীফ অপারেটিং অফিসার রাসেল আহমদ রাশি উপস্থিত ছিলেন। চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানান, ২০১৮ সালের ১লা জানুয়ারি থেকে অনলাইন সিস্টেম চালু হলে সিটি কর্পোরেশন এলাকার বাসিন্দাগণ বিশ্বের যেকোন দেশ থেকে অনলাইনে যেকোনো সময় এই সিটিজেন চার্টার নামক এ্যাপসের মাধ্যমে ভিজিট করে নগরীর দোকান, স্পেস বরাদ্দ ও সিসিকের নিয়ন্ত্রণাধীন হাট-বাজারের ইজারা, টেন্ডার, নোটিশ, বিষয়ে সর্বশেষ বিজ্ঞপ্তি দেখতে পারবেন।

অনলাইনে সহজে ফরম পূরণ করে এ সকল স্থাপনার জন্যে বরাদ্দ অথবা ইজারার আবেদন জমা দেওয়া যাবে। এছাড়া নগরীর বাসিন্দাগন সব ধরনের বিল দেখে তা পরিষোধ করতে পারবেন। আবেদনটি প্রাথমিকভাবে গৃহীত হলে আবেদনকারীর কাছে এসএমএস ও ই-মেইল এর মাধ্যমে নোটিফিকেশন পাঠানো হবে যার পরবর্তীতে তাকে নির্দিষ্ট পরিমাণে অর্থ অনলাইনে/নগদে/ব্যাংক ড্রাফটের মাধ্যমে পরিশোধ করতে হবে। পুরো প্রক্রিয়া সফলভাবে সম্পন্ন হবার পর আবেদনকারীকে এসএমএস করে নিশ্চিত করা হবে এবং সিস্টেমটির মধ্যে থেকেই চুক্তিপত্র তৈরি হবে।

এছাড়াও আবেদনকারী যে কোন সময় অনলাইন সিস্টেমটিতে থাকা তার নিজস্ব ড্যাশবোর্ড দেখে আবেদন সংশ্লিষ্ট হালনাগাদকৃত তথ্য জানতে পারবেন। যে কোন ব্যক্তি কম্পিউটার, মোবাইল ব্যবহার করে এই সেবা গ্রহণ করতে পারবেন।

এই সিস্টেমটির সফল বাস্তবায়ন হলে সম্পত্তির মালিকানা বিষয়ক নিবন্ধন ও  লাইসেন্সসহ সকল সেবাসমুহ পেতে জনগণের হয়রানি হ্রাস পাবার পাশাপাশি সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সার্বিক কার্যপদ্ধতিতে দ্রুততা, স্বচ্ছতা ও কার্যকারিতা বৃদ্ধি পাবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। বিজ্ঞপ্তি