রবিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০১৭

টাঙ্গুয়ার হাওরের "ওয়াচ টাওয়ার" যেন মরণফাঁদ

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:পর্যটকদের মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে মাদার ফিসারিজ খ্যাত সুনামগঞ্জের টাঙ্গুয়ার হাওরের ‘ওয়াচ টাওয়ার’। নির্মাণকালে নিরাপত্তা বেষ্টনী (গ্রিল) বেশ ভালো থাকলেও বর্তমানে তা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে পর্যটকদের জন্য। সম্প্রতি হাওরে আগত এক পর্যটক ওয়াচ টাওয়ার নিয়ে তার ফেসবুকে একটি লেখা পোস্ট করেছেন।

সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘২০১৬ সালে যখন বেড়াতে যাই তখন ওয়াচ টাওয়ারের চারদিকের নিরাপত্তা বেষ্টনী ছিল চমৎকার। কিন্তু এবার ২০১৭ সালের শেষ দিকে ওইখানে বেড়াতে গিয়ে আশ্চর্যান্বিত হই। দেখা যায়, ওয়াচ টাওয়ারের মধ্যভাগের গ্রিলগুলো নেই, পাশের গ্রিলগুলোও উধাও। অথচ এই ওয়াচ টাওয়ারে উঠে টাঙ্গুয়ার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অবলোকন করার জন্য আসছেন শত শত বা হাজারো পর্যটক। আর যে কেউ বা কোনো পর্যটক যদি একটু বেখেয়ালে হাঁটেন তাহলেই পতন অনিবার্য। আর ওইখান থেকে পড়লে সোজা দেড়শ ফিট নিচে পড়তে হবে। বাঁচা হয়তো কঠিন কিন্তু বেঁচে থাকলে পঙ্গুত্ব বরণ করতে হবে নিশ্চিত।’




তিনি আক্ষেপ করে লিখেছেন, ‘যারা নিরাপত্তা বেষ্টনী বা গ্রিলগুলো চুরি করে নিয়ে গেছে তাদের ব্যাপারে কিছু বলার নেই, কিন্তু যে সকল রথি মহারথিরা এখানে বেড়াতে এসে এর দুর্দশা দেখে যান (ছোট বড় আমলা থেকে বিভিন্ন সেক্টরের প্রধানগণ) তাদের কি কোনো কিছু করার বা বলার নেই? কোনো দ্বায়িত্ববোধ নেই?


আমরা জনসাধারণেরা তাদের এহেন আচরণের জন্য লজ্জিত হই। আমার জানা মতে, এখানে ফ্রিল্যান্সার, ফটোশুটার, জার্নালিস্টরাও আসেন অবিরত অহরহ। তাদের মসল্লা মাখানো হাজারো রকম ছবি আমরা দেখে তৃপ্ত হই, কিন্তু ওয়াচ টাওয়ার, প্লাস্টিক বা ময়লা আবর্জনা ফেলে হাওড়ের পরিবেশ বা পানি দুষণের ব্যাপারে কাউকে কথা বলতে দেখেনি।

যা হোক, ওয়াচ টাওয়ারের প্রতি আশুদৃষ্টি ক্ষেপণ না করলে যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। চলে যেতে পারে তরতাজা প্রাণ। বেড়াতে এসে উদ্বিগ্ন হয়ে বা ভয়ে ওয়াচ টাওয়ারে পদার্পন আর আজরাইলে সঙ্গী হওয়াটা একই জিনিস। তাই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষসহ ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলছি, দয়া করে ওয়াচ টাওয়ার ব্যবস্থাপনার দিকে একটু খেয়াল বা নজর দিন, দুর্ঘটনা থেকে পর্যটকদের নিরাপত্তা সু-সংহত করুন। নয়তো কোনো প্রকার দুর্ঘটনার দ্বায়ভার এড়িয়ে যাবার সুযোগ আপনাদের কারোর থাকবে না, আপনারা আপনাদের কর্তব্য এড়িয়ে যেতে পারেন না। আশা করব অনতিবিলম্বে এর আশু ব্যবস্থাপনা ও সুষ্ঠু সমাধান হবে।'