বুধবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৭

ছাত্রলীগ কর্মী মিয়াদ হত্যায় জড়িত সন্দেহে যুবক আটক


স্টাফ রিপোর্টঃ সিলেটে ছাত্রলীগ কর্মী মিয়াদ হত্যায় সরাসরি জড়িত থাকার অভিযোগে তোফায়েল আহমদ নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার (১৮ অক্টোবর) ভোরে ঢাকাস্থ শেরেবাংলা নগর জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন থাকাবস্থায় তাকে আটক করে সিলেট শাহপরাণ (র.) থানা পুলিশের একটি দল।
শাহপরাণ (র.) থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আখতার হোসেন  এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ওমর আলী মিয়াদ হত্যাকাণ্ডে সরাসরি জড়িত তোফায়েল আহতাবস্থায় পালিয়ে ঢাকায় হৃদরোগ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। 
অবশ্য ঘটনার পরপরই ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এলাকা তোফায়েলের ভাই ফখরুল ইসলামকে আটক করা হয়েছে। আটক ফখরুল ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ও সিলেট সিটি করপোরেশনের লাইসেন্স শাখায় চাকরি করেন।
আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সোমবার (১৬ অক্টোবর) বিকেল সোয়া ৩টায় নগরীর টিলাগড়ে ছাত্রলীগের রায়হান চৌধুরী গ্রুপের সদস্য তোফায়ল ও হিরণ মাহমুদ নিপু গ্রুপের অনুসারীদের সংঘর্ষ হয়। এতে ছুরিকাঘাতে ওমর আলী মিয়াদ নিহত হন। আহত হন উভয় গ্রুপের কয়েকজন। 
নিহত মিয়াদ সিলেটের শহরতলীর বালুচর এলাকার আকুল মিয়ার ছেলে। ৩ ভাই ২ বোনের মধ্যে মিয়াদ ২য়। তিনি লিডিং ইউনিভার্সিটির আইন বিভাগের ছাত্র ছিলেন। অন্যদিকে আটক তোফায়েল একই এলাকার বাসিন্দা।

এদিকে মঙ্গলবার (১৭ অক্টোবর) দুপুরে ময়না তদন্ত শেষে মিয়াদের মরদেহ নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করে ছাত্রলীগ। সমাবেশ থেকে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এম রায়হান চৌধুরীর গ্রেফতার দাবি ও চার দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করে তাদের অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়।
পরে নিহতের মরদেহ সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের বালিশ্রী গ্রামে দাফন করা হয়।