শুক্রবার, ১১ আগস্ট, ২০১৭

সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী হ‌জ্বে যা‌চ্ছেন

স্টাফ রিপোর্ট:স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অনুমতি পেলে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে হজে যাবেন সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। কারাগারে থাকা অবস্থায় তিনি প্যানেল মেয়রদের দায়িত্ব না দিলেও এবার কার হাতে সিটি করপোরেশনের দায়িত্ব তুলে দিয়ে যান সেটি নিয়ে শুরু হয়েছে কানাঘুষা। সিলেট সিটি করপোরেশনের যে তিনজন নির্বাচিত প্যানেল মেয়র রয়েছেন তারা সবাই বিএনপি দলীয়। কিন্তু অভিযোগ রয়েছে আরিফ তাদের প্রতি ‘সদয়’ নন। তাই প্রশ্ন উঠেছে- হজে গেলে কাকে দায়িত্ব দিয়ে যাবেন মেয়র আরিফ।
সিলেট সিটি করপোরেশন সূত্র জানিয়েছে- মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী হজে যাওয়ার জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে অনুমতি নিতে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন। ওই চিঠির জবাব এখনো আসেনি। জবাব না এলেও ইতিমধ্যে আরিফুল হক চৌধুরী হজের জন্য প্রস্তুতি শুরু করেছেন। মেয়র হজে যাচ্ছেন এ খবরে ইতিমধ্যে সিলেট সিটি করপোরেশনে কানাঘুষা চলছে।

আরিফের অবর্তমানে কে চালাবেন সিটি করপোরেশন- এ নিয়ে চলছে নানা বিশ্লেষণ। কারণ আইনে আছে মেয়র অনুপস্থিত থাকলে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে প্যানেল মেয়ররা ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব পালন করবেন। সিলেট সিটি করপোরেশনে নির্বাচিত তিনজন প্যানেল মেয়র হচ্ছেন বিএনপি দলীয়।
এর মধ্যে প্রথম প্যানেল মেয়র হচ্ছেন- রেজাউল হাসান লোদী কয়েস। তিনি মহানগর বিএনপির বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি, দ্বিতীয় প্যানেল মেয়র এডভোকেট সালেহ আহমদ চৌধুরী একজন সিনিয়র বিএনপি নেতা ও তৃতীয় প্যানেল মেয়র এডভোকেট রোকশানা বেগম শাহনাজ মহানগর মহিলা দলের সভাপতি। তিনজন বিএনপি দলীয় প্যানেল মেয়র হলেও আরিফুল হক চৌধুরী প্রায় ২৭ মাস কারাগারে থাকা অবস্থায় নিজ থেকে কারও হাতে দায়িত্ব তুলে দেননি। এ নিয়ে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন প্যানেল মেয়ররা। তারা নিজেদের পক্ষে কোর্টের রায়ও পেয়েছেন। ওদিকে কারাবন্দি থাকা অবস্থায় মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী কোনো প্যানেল মেয়রকে দায়িত্ব না দিয়ে যাওয়ায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সিটি করপোরেশনের কার্যক্রম চলমান রাখার স্বার্থে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে আর্থিক ও প্রশাসনিক দায়িত্ব অর্পণ করে। এরপর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর অনুপস্থিতিতে দায়িত্ব পালন করেন। কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে কয়েক মাস ধরে মেয়রের দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। কিন্তু দায়িত্ব পালন করলেও প্যানেল মেয়রদের সঙ্গে তার সম্পর্কের উন্নয়ন হয়নি। বরং বিএনপি দলীয় তিন প্যানেল মেয়রের মধ্যে কাউকে দায়িত্ব না দিয়ে যাওয়ায় স্থানীয়ভাবে বিএনপি’র নেতাদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয়।
সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানিয়েছেন- তিনি ব্যক্তিগতভাবে এবার হজে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। যেহেতু তিনি মেয়র এ কারণে ইতিমধ্যে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের কাছে অনুমতি চেয়ে চিঠি দিয়েছেন। এই চিঠিটি প্রধানমন্ত্রীর টেবিলে রয়েছে। অনুমতি পেলে তিনি হজে যাবেন বলে জানান। এবার হজে যাওয়ার আগে প্যানেল মেয়রদের দায়িত্ব দিয়ে যাবেন কী না এমন প্রশ্নের জবাবে মেয়র বলেন- বিষয়টি আমি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়কে জানাবো। মন্ত্রণালয় যে সিদ্ধান্ত দেবে সেই মতো দায়িত্ব দিয়ে যাবো। তিনি বলেন- প্যানেল মেয়রদের দায়িত্ব দিতে হলে আগে আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলতে হবে। কারন- এখনো উচ্চ আদালতে প্যানেল মেয়র নিয়ে মামলা রয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।