রবিবার, ২৫ জুন, ২০১৭

হকার্স মার্কেটের সি ও ডি ব্লক ভেঙ্গে হকারদের পুনর্বাসন

স্টাফ রিপোর্ট: সিলেট নগরীর হকারদের স্থানীয় পুনর্বাসনের উদ্যোগ নিলেন সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। নগরীর লালদিঘীরপাড়স্থ হকার্স মার্কেটের সি ও ডি ব্লকে হকারদের স্থায়ীভাবে পুনর্বাসন করা হবে বলে জানান। বর্তমান ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ থাকায় সেটি ভেঙ্গে হকারদের নতুন ভবন নির্মাণ করে দিবে নগরভবন কর্তৃপক্ষ। এ লক্ষ্যে গত বুধবার বর্তমান ভবনটি ভাঙার লক্ষ্যে নিলাম সম্পন্ন হয়েছে। ১ কোটি ৪২ টাকায় ওই দুই ব্লকের বিল্ডিংটি নিলাম হয়েছে। নিলামে টেন্ডার পেয়েছে মেসার্স সিরাজুল ইসলাম এন্টারপ্রাইজ। এই বিল্ডিংটি ভাঙার জন্য এরআগে ৪২ লাখ টাকায় নিলাম হয়েছিল। কিন্তু পরে সেটি ভাঙা হয়নি। এবার ১ কোটি টাকা বেশি মূল্যে নতুন করে ভাঙার টেন্ডার দিল নগর ভবন কর্তৃপক্ষ।

এর আগে গত মাসের ২৯ মে সিলেটের আদালত প্রাঙ্গণসহ জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও সিটি কর্পোরেশন কার্যালয় সংলগ্ন ফুটপাতে অবৈধ দখলদার, নেপথ্যে থাকা দখলদার পক্ষের ব্যক্তিদের নাম, ঠিকানা ও পরিচয় সনাক্তকরণের লক্ষ্যে সিলেটের বিভিন্ন সেক্টরের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে জরুরী বৈঠক করে সিলেট সিটি কর্পোরেশন।
পরে এক সভায় নেয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৩ দিনের মধ্যে সিলেটের আদালত প্রাঙ্গণসহ জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও সিটি কর্পোরেশন কার্যালয় সংলগ্ন ফুটপাতে অবৈধ দখলদারদের সরে যাওয়ার জন্য সময়সীমা বেঁধে দিয়ে মাইকিং করে সিসিক।

সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির একটি আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২৫ মে সিলেটের মুখ্য মহানগর বিচারিক হাকিম মো. সাইফুজ্জামান হিরো জনগুরুত্বপূর্ন প্রতিষ্ঠানের সংলগ্ন ফুটপাতে অবৈধ দখলদার, নেপথ্যে থাকা দখলদার পক্ষের ব্যক্তিদের নাম, ঠিকানা তদন্ত করে সাত দিনের মধ্যে তা আদালতে দাখিল করতে সিটি কর্পোরেশনকে নির্দেশ দিয়েছিলেন। এ কাজে সিটি কর্পোরেশনকে সহায়তা করতে কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।

সর্বশেষ গত ৩১ মে সিলেট জেলা ও দায়রা জজ (ভারপ্রাপ্ত) মো. জয়নাল আবেদীন সিলেটের আদালত প্রাঙ্গণসহ জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও সিটি কর্পোরেশন কার্যালয় সংলগ্ন ফুটপাতে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করতে সিটি মেয়র, এসএমপি কমিশনার, জেলা প্রশাসক ও কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে অনুরোধসহ নির্দেশ প্রদান করেন।