বৃহস্পতিবার, ২২ জুন, ২০১৭

টিলা উদ্ধারে অবশেষে প্রশাসনের উদ্বেগ অভিযান

স্টাফ রিপোর্ট:নগরীর বৃহত্তর আখালিয়া এলাকায় চলছে দেদারছে টিলা কাটা। টিলা কেটে ঝুঁকিপূর্ণভাবে তৈরি করা হচ্ছে বাসা-বাড়ি। এতে বর্ষা মৌসুমে টিলা ধ্বসে প্রাণহানীর আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। টিলা কাটা বন্ধ ও টিলাখেকোদের বিরুদ্ধে অবশেষে অভিযানে নেমেছে প্রশাসন। বুধবার নগরীর হাওলাদার পাড়া এলাকায় প্রশাসনের অভিযান চলাকালে টিলাখেকোরা পালিয়ে যায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নগরীর বৃহত্তর আখালিয়া এলাকার হাওলাদারপাড়া, করের পাড়াসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় টিলা কাটা চলছে। টিলা কেটে সমতল করে গড়ে তোলা হচ্ছে বাসা বাড়ি। কেউ কেউ টিলার পাদদেশে তৈরি করছেন পাকা ঘর। 

আবার কেউ কলোনি তৈরি করে দিচ্ছেন ভাড়া। ভাড়া কম হওয়ায় নিম্ম আয়ের মানুষ বসবাসের জন্য বেছে নিচ্ছে ঝুঁকিপূর্ণ এই কলোনিগুলো। বিরোধপূর্ণ অনেক টিলার দখল ধরে রাখতে অনেকে আবার কলোনি তৈরি করে বিনা ভাড়ায় লোকজন থাকার ব্যবস্থাও করে দিয়েছেন। ঝুঁকিপূর্ণ এই বসবাস নিয়ে গত কয়েকদিন বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর গতকাল বুধবার দুপুরে হাওলাদারপাড়া এলাকায় এ অভিযান চালায় প্রশাসন।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাইজার মোহাম্মদ ফারাবির নেতৃৃত্বে অভিযান চলাকালে টিলাখেকোরা পালিয়ে যান। কাইজার মোহাম্মদ ফারাবি জানান, যারা টিলাকেটে পরিবেশ ধবংস করে বাসা-বাড়ি তৈরি করেছে তাদের তালিকা করা হয়েছে। এদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা হবে। অভিযান টের পেয়ে তারা পালিয়ে যাওয়ায় তাৎক্ষণিক তাদরেকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।