সোমবার, ৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭

সিলেট বাসীর ভালোবাসায় শিক্ত সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত কে শেষ শ্রদ্ধা প্রদান

রূপক চন্দ্র দাস :আজ সোমবার ০৬ই ফেব্রুয়ারি ২০১৭, সিলেট বাসীর জন্য ছিল অন্যরকম একটা দিন। আজ সকাল ০৯ ঘটিকার সময় সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সেনবাবুর মরদেহ আসার কথা। তাই সিলেট শহর তথা বিভিন্ন গ্রাম থেকেও বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষজন ছুটে আসেন শেষবারের জন্য একবার দেখার জন্য। শেষ অব্ধি সকাল ১১:২২ মিনিটে সেনবাবুর মরদেহ শহীদ মিনারে নিয়ে আসেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ এর কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, মহানগর সভাপতি সাবেক মেয়র বদরুদ্দিন আহমেদ কামরান, জেলা আওয়ামীলীগ এর সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান, মহানগর সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন, সিলেট জেলা আওয়ামীলীগ এর যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক রঞ্জিত সরকার সহ কেন্দ্রীয় নেত্রীবৃন্দ।
আপারময় জনতা সারিবদ্ধভাবে সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মরদেহে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন। ১৯৭০ সালের পাকিস্থানের নির্বাচনে নৌকা মার্কা কিংবা বঙ্গবন্ধুর আকাশস্পর্শী জনপ্রিয়তার কথা কারোরই অজানা ছিলনা।অজানা ছিল সেই নির্বাচনে দিরাইয়ে নৌকার পক্ষে জনসভায় বঙ্গবন্ধু নিজে এসে বলেছিলেন "বাঙ্গালীদের অধিকার রক্ষার জন্য নৌকা মার্কা নিয়ে কলাগাছ প্রার্থীকেও আপনারা ভোট দিতে হবে।" সেই নির্বাচনেও বাবু সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত নৌকার প্রার্থীকে হারিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হোন। আজ সেই সেনবাবু আমাদের সবাইকে কাদিয়ে চলে গেলেন না ফেরার দেশে।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সদ্য প্রয়াত সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে সিলেট শহীদ মিনারে মানুষের ঢোল নামেআওয়ামীলীগ, বি এন পি ও বিভিন্ন সংঘটনের নেতারা পুষ্প অর্পনের মাধ্যমে বাবু সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন.আওয়ামীলীগের উচ্চ পর্যায়ের নেতা ও মন্ত্রিপরিষদ শ্রধাঞ্জলিতে অংশগ্রহণ করেনসিলেটের শ্রদ্ধা নিবেদনের পর তাকে নিয়ে যাওয়া হয় সুনামগঞ্জ শহরের নতুনকোর্ট এলাকার স্থাপিত স্মৃতিসৌধ চত্বরে। সেখানে তাকে রাষ্ট্রীয়ভাবে গার্ড অব অনার প্রদান করে জেলা পুলিশের একটি দল অবশেষে দিরাইয়ের নিজ বাসভবনে শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হবে।

উল্লেখ্য,রবিবার (৫ ফেব্রুয়ারি) ভোর চারটার দিকে রাজধানীর ল্যাব এইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন আওয়ামী লীগ নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত।