রবিবার, ১ জানুয়ারী, ২০১৭

বাংলাদেশের স্বানামধণ্য স্টিল ব্যবসায়ী জনাব শামসুল আলম



বাংলাদেশের স্টিল ইন্ডাস্ট্রি তে এক বরণ্য এবং সফল ব্যবসায়ী চট্টগ্রামের আলহাজ শামসুল আলম সাহেব. তিনি আমাদের সিলেটের স্টিল ব্যবসায়ীদের কাছে অত্যন্ত পরিচিত নাম উনি দীর্ঘ দিন যাবৎ আমাদের সিলেটে এ ব্যবসা করতেছেন.বৃহত্তর বাংলাদেশের প্রায় প্রতিটি শহরেই উনার ব্যবসায়ী পার্টনার বা ডিলার রয়েছেন.

আজকের এই প্রতিযোগিতামূলক বাজারে অনেক কঠিন পরিস্তিতির মধ্যেও তিনি নিজেকে প্রতিষ্টিত ও মানিয়ে নিতে পেরেছেন.উনার সহযোগিতায় ব্যবসায়ীগণ উপকৃত হচ্ছেন.আজ আমাদের সিলেট আজকাল এর সম্পাদক এম এ সামাদ উনার সাক্ষাৎ নিয়েছেন.কথা হয়েছে উনার ব্যবসা জীবন নিয়ে এবং উনার ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে.

ব্যবসা জীবনের শুরু:১৯৮৯ সালে আমার জীবনের প্রথম ব্যবসা শুরু করি.আমি মাত্র ৩৫০০ টাকার পুঁজি নিয়ে ব্যবসা শুরু করি.আমার পুরাতন লোহা ক্রয় বিক্রয় এর ব্যবসা ছিল চট্রগ্রাম এর আগ্রাবাদ এ.ব্যবসা শুরুর আগে আমি অন্তত ৫০ টি ছুটো বড় প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেছি.


স্টিল ব্যবসায় নিজেকে যেভাবে প্রতিষ্টিত করি:আমি যখন পুরাতন লোহা বিক্রি শুরু করি তখন আমার বয়স অল্প ছিল আমার বিভিন্ন প্রতিষ্টানে চাকরি করার ও অভিজ্ঞতা ছিল.বর্তমানে আমার আলম স্টিল কর্পোরেশন নামে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে.

আমার খুব অল্প বয়সে কাজে জড়িয়ে পড়া এবং আয় করার উদ্দম প্রচেষ্টা আমাকে অনেক কিছু দিয়েছে.আমি বাংলাদেশের স্টিল ব্যবসায় নিজেকে প্রতিষ্টিত করতে পেরেছি আমি সততার সাথে এই ব্যবসা কে আজ সর্ব স্তরে নিয়ে যেতে পেরেছি.স্টিল ব্যবসা ছিল আমার প্রথম ব্যবসা এবং এখনো পর্যন্ত এই ব্যবসায় আছি.বর্তমানে আমার ব্যবসা প্রতিষ্টানের বাজার দর প্রায় দুই হাজার কোটি টাকা.আমার স্টিল ব্যবসার পাশাপাশি প্রপার্টি ব্যবসা রয়েছে.

ব্যক্তিগত জীবন:আমার বাবা একজন মৌলানা ছিলেন.আমার বাবার নাম মৌলানা আব্দুল গাফ্ফার এবং আমার মায়ের নাম নুরুন্নাহার.আমরা পাঁচ ভাই.পাঁচ ভাইয়ের মধ্যে আমি দ্বিতীয়.আমার বাবার কোন জায়গা জমি ছিলোনা.আমি ব্যবসার মাধ্যমে আজ আমার পরিবারের অবস্থার পরিবর্তন আন্তে পেরেছি.আল্লাহতালার অশেষ রহমতে আমি ভালো আছি আমার জন্য দুআ করবেন.

অন্নান্য অঙ্গ প্রতিষ্ঠান:আমার পিতা ও মাতার নামে আমার ট্রাস্ট রয়েছে গাফ্ফার নাহার ট্রাস্ট. তাছাড়াও আমার এতিমখানা,স্কুল ও মাদ্রাসা চট্টগ্রামে রয়েছে.